Sexy Kakimar Bikrito Jounota কাকিমার বিকৃত যৌনতা

Sexy Kakimar Bikrito Jounota কাকিমার বিকৃত যৌনতা

আমি সমীর, বর্তমানে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র। আমার মনে আজ প্রচন্ড উত্তেজনা, কারণ এই ভয়ংকর লকডাউন যখন আমাকে রীতীমত অকেজো করে তুলতে চলেছে। তখন বিপ্লব ককু এক অসাধারণ প্রস্তাব নিয়ে হাজির বাড়িতে। কাকু আমার বাবার ছোটোবেলার বন্ধ, এখন আত্মীয় বলাই বাহুল্য। বিপ্লব কাকু পুলিশ, যথেষ্ট প্রভাবশালী। কাকুর প্রস্তাব হল মুর্শিদাবাদ ভ্রমণ সপরিবারে। অর্থাৎ আমরা তিন জন, আর কাকুরা তিনজন কিন্তু যাবে দুজন কাকু-কাকিমা। ওনাদের মেয়ে, সুমি দি ফেলোশিপ নিয়ে ফ্রান্সে আছে। তাই ও যাবেনা।

আমি তো একপায়ে খাড়া, মা প্রথমে গাইগূঁই করলেও পরে রাজি হয়। সুতরাং সব ফাইনাল আমরা পরশু রওনা হচ্ছি মুর্শিদাবাদ জেলার উদ্দেশ্যে। কাকু সব ঠিকঠাক করে বাজার চলে গেল। আর যাওয়ার আগে আমায় বলল, “তুই এক কাজ কর টুবলু আমাদের বাড়ি যা। কাকিমা’কে গিয়ে বলবি প্ল্যান কনফার্ম। আর এই কাগজটা দিস, বলিস আলমারিতে রাখতে। খুব ইমপর্ট্যান্ট কাগজ কিন্তু। ”

আমি কাগজ নিয়ে আর মা আমাকে একটা টিফিন বক্স দিয়ে বলল, ” বলবি ঢাকনা খুলে রাখতে গরম তো নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ” সেটা নিয়ে কাকিমার বাড়ি গেলাম। ওদের বাড়ি খুবই কাছে আমার হাটার স্পিড অনুযায়ী ৫ মিনিটের বেশি সময় লাগে না। গিয়ে দেখি কাকিমা রান্না করছে। গরমে প্রচন্ড ঘেমে গেছে। কাকিমা’কে ডেকে হাতে দুটো জিনিস দিয়ে বললাম যা যা বলার ছিল। তারপর ঘরে গিয়ে বসলাম। কাকিমা বলল, “বোস্, আমি ডালটা নামিয়ে আসি। ”
আমি: গরমে করে এত পার রান্না করতে?
কাকিমা রান্না করতে করতে উওর দিল, ” নইলে কে করবে? তোর কাকু তো না খেয়ে থাকবে! ”
আমি: হ্যাঁ তা ঠিক তবুও, তোমার অবস্থা টা দেখো এই ঘাম বসে ঠান্ডা। আমি বলতে কাকিমার রান্না ঘরের সামনে গিয়ে দাঁড়ালাম।
কাকিমা: ওসব সয়ে গেছে রে।
আমি দাড়িয়ে দাড়িয়ে কাকিমার কর্মকাণ্ড দেখছি। কখনও খুন্তি নাড়াছে কখনও পাশের শেল্ফ থেকে মশলার ডিব্বা নিচ্ছে। আর মধ্যে মধ্যে আমার সাথে কথাও বলছে। কিছুক্ষণ পর আমি খেয়াল করলাম কাকিমা যেখানে রান্না করছে তার ডান পাশে একটা জানলা বন্ধ।
আমি: কাকিমা জানলাটা খোলোনি? ধোঁয়া পাস হচ্ছে না আর অসহ্য গরম বাড়ছে।
কাকিমা: ওটা খোলা হয়নি, এত রোদ ঢোকে!
আমি; আরে তাতে কি? দাড়াও আমি খুলছি।

আমি জানলা টা খুলে দিয়ে আবার দরজার কাছে এসে দাঁড়াতে দেখলাম সত্যিই রোদ ঢুকছে কিন্তু ধোঁয়াও বেরোচ্ছে।
আমি: দেখলে কাকিমা… হঠাৎ দেখলাম রোদের জন্য কাকিমার ম্যাক্সির ভিতর দিয়ে, কাকিমার শরীর দেখা যাচ্ছে। কাকিমা স্তন যুগল, কাকিমার নিতম্ব। আমি চোখ ফিরিয়ে নিয়ে অন্যদিকে তাকাই। বুকের ভেতর যেন ভূমিকম্প হচ্ছে। ঠোঁট আমার শুকিয়ে গেছে, যেন অবশ হয়ে গেছে কাকিমার শরীর দেখে। কাকিমা তখন দিদির বোলপুরে পড়তে গিয়ে আটকে পড়ার কথা বলছে কিন্তু আমার কানে যেন কিছুই ঢুকছেনা। আমার চোখ বারবার কাকিমার ডিপ ব্রাউনীশ্ শরীরটা প্রতি আকৃষ্ট। কখনো কাকিমার নিতম্ব, কখনো কাকিমার স্তনের মধ্যে ব্ল্যাকীশ্ নিপল্ দেখছি।
আমি মোহে আচ্ছন্ন হয়ে আছি, আমি ডাইনিং এ চলে আসি দ্রুত, আমার ভেতর তখন যেন দাবানলের মতো আগুন জ্বলছে। আমার ফ্যান্টাসি যেন বাস্তবায়নে আগ্রহী। কিন্তু উনি যে আমার কাকিমা। শকুন্তলা কাকিমার এরকম শরীর নিয়ে আমি কি করে আমার ফ্যান্টাসিতে ভাসতে পারি?
হঠাৎ কাকিমা এসে বলল, “চা খাবি? আমি একটু খাব! ”

আমি মোহাবিষ্টের মত কাকিমাকে হ্যাঁ বললেও আমি দেখলাম কাকিমার ঠোঁট, কাকিমার মুখ, যেন হালকা গ্রামীণ মধ্যবয়স্ক মহিলা। ঠোঁটটা খয়েরী, মনে হয় তেল মেখেছে ঠোঁটে তাই আরও মসৃণ এবং তৈলাক্ত।

আমি আর সহ্য করতে পারছিনা। উঠে আবার রান্না ঘরের দিকে দাড়িয়ে কাকিমার শরীর দেখতে লাগলাম। ঘাড়ের কাছে ঘাম, গলার কাছেও বিন্দু বিন্দু ঘাম। আমার কেমন যেন অস্থির লাগছে, এমন সময় কলিং বেল বেজে উঠলো।
কাকিমা: তোর কাকু এল বোধহয়।একটু খুলে দে তো দরজাটা।

আমার মনটা সম্পূর্ণ ভেঙে গেল। আমি দরজা খুললাম সত্যিই কাকু এসেছে। কাকুর হাত থেকে ব্যাগ গুলো নিয়ে ডাইনিং টেবিলের কাছে রাখলাম।

কাকু ঘরে ঢুকে বলল, ” শোনো, মিস্ত্রি ঠিক করে আসলাম। আমরা ঘুরে আসি তারপর কাজ শুরু করবে। ” আমি বললাম, “আবার কী করাবে? ”

কাকিমা চা নিয়ে এল দুজনের জন্য। টেবিলে কাপ রেখে ব্যাগ টা নিয়ে গেল।
কাকু: রঙ করাব রে! অনেক দিন হল। তবে আমার তো থাকা হবেনা তোর কাকিমার ওপর পুরো দেখাশোনার দায়িত্ব পড়বে!

এই সব কথা বলতে বলতে চা শেষ করলাম। তারপর দেরি না করে বাড়ি চলে এলাম। বাড়ি এসেই ফোন করলাম আমার বন্ধু আমিনকে। আমরা এক স্কুলেই পড়ি, আমার সব কিছু আমিন জানে আর আমিনে সব কিছু আমি। ওকে ফোন করে বললাম, ” ভাই এক কান্ড ঘটেছে, আজ প্রথম আমি নিজের চোখের সামনে একজন মধ্যবয়স্ক মহিলার নগ্ন শরীর দেখেছি। জাস্ট ফাটাফাটি, পারফেক্ট শেপ। ”
আমিন: কী বলছিস ভাই? কে তিনি?
আমি: বিপ্লব কাকুর স্ত্রী!
আমিন: হ্যাঁ সেকি রে? মানে তোর বাবার যে বন্ধু!
আমি: ইয়েস, ভাই আমি পাগল হয়ে গেছি। ঠিক যেন জুলিয়া অ্যান্। শুধু গায়ের রঙটা শ্যামলা, কিন্তু ঘামে ভিজে মারাত্মক সেক্সি লাগছিল।

আমিন: সব তো মানলাম, কিন্তু কোনো ফায়দা নেই! প্রথম, তোর কাকিমা হয়, বয়স কত ওনার?
আমি: ঠিক আইডিয়া নেই। তবে ৪৫ তো হবেই।
আমিন: হুম্, আর দ্বিতীয় তোর পক্ষে এগোনো চাপ! তাই ছাড়।
আমি: কিন্তু ভাই , কাকিমা আমাদের ফ্যান্টাসি কুইন! একদম এক!
আমিন: নারে, ছাড় এসব চাপের!
আমি: আর যদি সুযোগ করে ফেলি তখন?
আমিন একটু হেসে বলে, ” জানোয়ার ছেলে। রাখ। ”
ফোনটা রেখে আমি বাথরুমে গেলাম। আজ থেকে যে নতুন অধ্যায় শুরু করতে হবে ।
এরপর মুর্শিদাবাদ, চলবে। পরবর্তীতে কী হয় জানতে সঙ্গে থাকুন।

Leave a Comment